দ্বাদশ শ্রেণি পাস - মেডিক্যাল পরীক্ষায় উত্তির্ণ , প্রথম আদিবাসী মেয়ে..

 

একটি মেয়ের সাফল্যের কাহিনী তার চেষ্টা ও পরিশ্রমের ফলাফল মেয়েটির নাম এম সাঙ্গাভি বয়স মাত্র ১৯ বছর।

 মেয়েটি আদিবাসী সম্প্রদায়ের মেয়ে এবং তিনিই প্রথমে আদিবাসী সম্প্রদায়ের মেয়ে যিনি মেডিকেল পরীক্ষার সফলতা লাভ করে নিজের সম্প্রদায়ের মুখ উজ্জ্বল করেছেন। মালাসর উপজাতি সম্প্রদায়ের মেয়ে এই এম সাঙ্গাভি,থাকেন মধুকরইতে। গ্রামের প্রথম মেয়ে হিসেবে দ্বাদশ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন তিনি। এনইইটি পরীক্ষায় মোট ৭২০ নম্বরের মধ্যে তিনি পেয়েছেন ২০২ নম্বর।

এমনকি মেডিকেল পরীক্ষায় দ্বিতীয়বারের প্রচেষ্টায় সফল হন তিনি। তবে এই যাত্রা মোটেও সহজ ছিল না, সাঙ্গাভির বাবা মারা যান. লকডাউনে, মাও আংশিক দৃষ্টি সম্পন্ন ব্যক্তি। কঠিন এই পরিস্থিতিতে তার লড়াই চালানোটা ছিল চ্যালেঞ্জের সমান। 

তবে এই পরিস্থিতিতে সাঙ্গাভি বুঝতে পারেন তাদের সম্প্রদায়ের জন্য চিকিৎসা ঠিক কতটা প্রয়োজন, সেই প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখেই তার এই মেডিকেল পরীক্ষায় বসা।

 আর এই এন ই ই টি হল একমাত্র পরীক্ষা যার মাধ্যমে ছেলেমেয়েরা স্নাতক মেডিকেল ও ডেন্টাল কোর্স এ ভর্তি হতে পারে। এই এন ই ই টি যার পরীক্ষার কেন্দ্র সারাদেশে আছে মোট ৩৮০০ টি। এমনকি এই পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের ৯৫ শতাংশই অংশগ্রহণ করেন। তবে বিগত বছরে করোনার জেরে কয়েকবার পরীক্ষা স্থগিতও' হয়। তবে এ বছর প্রায় ১৬ লক্ষ পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন হয়েছিল এবছর। 

উপজাতি সম্প্রদায়ের পরীক্ষার্থীদের জন্য কাট অফ মার্কস ছিল ১০৮ থেকে ১৩৭ এবং তাতে সাঙ্গাভি যথেষ্ট ভালো ফলাফল করে, যাতে তিনি একটি ভালো মেডিকেল কলেজে পড়ারও সুযোগ পান।

Post a Comment

Previous Post Next Post