তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে চান বরপক্ষ

সম্প্রতি মধ্যপ্রদেশ জেলার বিয়ের মন্ডপে ঘটে গেল এক আজব কান্ড! যাকে ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ডই বলা চলে, কারণ বিয়ের মন্ডপে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন সেখানকার পুলিশ। আসুন জানা যাক কি এমন ঘটনা ঘটেছে যার জেরে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসতে বাধ্য হয়।

 আসলে আদিবাসীদের বিয়ের নিয়ম রীতি অনুযায়ী বিয়ের সময় বরকে  ধুতি কুর্তা পড়তে হয়, সেই ধারাবাহিকতাকে অস্বীকার করে বিয়ের মন্ডপে বর অর্থাৎ সুন্দরলাল উপস্থিত হয় একটি শেরওয়ানি পড়ে। 

                            যে কারণে আত্মীয়রা জোরজবস্তি শুরু করেন ধুতি কুর্তা না পড়লে বিয়ের আচার অনুষ্ঠান শুরু হবে না এবং সেই জোরজবরদস্তি শেষ পর্যন্ত দুপক্ষের মধ্যে তুমুল তর্কাতর্কিতে পৌঁছায়,  এমনকি চরম বিবাদে এসে পৌঁছায় যে দুই পক্ষের মধ্যে পাথর ছোঁড়া ছুড়িও হয়, যার ফলে উভয় পক্ষের সদস্যরাই অভিযোগ দায়ের করেন, যার ভিত্তিতে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা ২৯৪ অর্থাৎ অশ্লীল কাজ, ৩২৩ অর্থাৎ আঘাত করা, এবং ৫০৬ অর্থাৎ অপরাধমূলক ভয় দেখানো এই ধারা অনুযায়ী কিছু ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা নথিভুক্ত করা হয়।

  তবে এ বিষয়ে বর অর্থাৎ সুন্দরলালের বক্তব্য কনের পরিবারের তাদের সাথে কোনো বিরোধ ছিল না, তবে তাদের আত্মীয়র মধ্যে এমন কিছু ব্যক্তি ছিল যারা এই ঘটনাটির সাথে জড়িত এবং ঘটনাটি ঘটিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চান কারণ এই ঘটনা বেশ কয়েকজন মহিলা আহতও হয়, তবে এই সমস্ত ঘটনাটি ঘটে গত সোমবার, কিন্তু গত শনিবারই আবার পারিবারিকভাবে বর-কনের পরিবার মিলে ধর শহরে গিয়ে তাদের আনুষ্ঠানিকভাবে বিবাহ সম্পন্ন করেন। 
  
            তাহলে প্রশ্ন উঠেছে এহেন অবান্তর. ঘটনা ঘটে যাওয়ার  মানে কি? যদিও সে বিষয়ে এখনো কোনো সদুত্তর পাওয়া যায়নি ।

Post a Comment

Previous Post Next Post