শিশুটির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সংস্থা



              আকাশপথে অতি দূর দেশের যাত্রাপথও অর্ধেক সময়ে পৌঁছে যাওয়া সম্ভব হয়। তাই, আর্থিকভাবে স্বচ্ছল মানুষেরা এখন আকাশপথেই ভরসা রাখেন। সম্প্রতি বিমানে ওঠা নিয়ে চরম হেনস্থার শিকার হতে হলো এক পরিবারকে।

           "ইন্ডিগো বিমান" নামটির সাথে আমরা সবাই কম বেশি পরিচিত। সেই  ইন্ডিগো বিমান কর্তৃপক্ষের নামে অভিযোগ উঠেছে। তারা নাকি একটি প্রতিবন্ধী শিশু এবং তার পরিবারকে বিমানে উঠতে দেননি। এই ঘটনা জানাজানি হতেই নেটিজেনদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়েছে।

           ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার (০৭.০৫.২০২২) রাঁচি বিমান বন্দরে। সূত্রের খবর, প্রতিবন্ধী শিশুটির অদ্ভুত আচরণে বিমানের অন্যান্য যাত্রীরা ভয় পেয়ে যান। তাই যাতে শিশুটির জন্য বিমানের বাকি যাত্রীদের কোনো অসুবিধার সম্মুখীন না হতে হয়, সেই জন্যই ইন্ডিগো বিমান কর্মচারী বাধ্য হয়েই শিশুটি এবং তার পরিবারকে বিমানে উঠতে দেননি। 

           প্রতিবন্ধী শিশুটির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় ক্ষুব্ধ হন নেটিজেনরা। তারা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর উদ্দেশ্যে ট্যুইট করে সবিস্তৃত ঘটনাটি জানান এবং বিচার চান। প্রত্যুত্তরে ওই রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য শিল্ডে ট্যুইট করেই জানান, "এহেন অমানবিক ঘটনা কিছুতেই মেনে নেওয়া হবে না। অপরাধ প্রমাণিত হলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে"। আশ্বাস দিয়েছেন, নিজে এই ঘটনাটির তদন্ত করবেন তিনি। 

            অপরদিকে, ভুল করেছেন এটি মেনে নিতে নারাজ ইন্ডিগো বিমান কর্তৃপক্ষ। তাদের পাল্টা যুক্তি, প্রতিবন্ধী বলে তারা কোনপ্রকার পক্ষপাতিত্ব করতে পারেননা। বিমানের সমস্ত যাত্রীই তাদের কাছে সমান। শিশুটির আচরণে যেহেতু অন্যান্য যাত্রীরা নিরাপত্তার অভাববোধ করছিলেন, তাই বাধ্য হয়েই এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। যদিও এই বিষয়ে ইন্ডিগো কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়েছে। 



                   

Post a Comment

Previous Post Next Post