সোনার ব্যাট পেয়েও বিন্দুমাত্র আনন্দিত ছিলেন না

আজ গড অফ ক্রিকেট এর বিশেষ দিন, সকলেই তাঁকে শুভেচ্ছা অভ্যর্থনায় ভরিয়ে দিয়েছেন, যদিও এবারের জন্মদিনটা তার আয়ি (লতা মঙ্গেশকর) নেই; প্রত্যেকটা জন্মদিনে তাঁর আয়ি(লতা মঙ্গেশকরের) তাঁকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান, বলা চলে এটা তাঁর কাছে অন্যরকম এক জন্মদিনই বটে।

 ৪৯ বছরে পা দিলেন তিনি, তিনি আর কেউ নন আমাদের সকলের প্রিয় ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার, আসুন জানা যাক আজ তার কিছু ক্রিকেট জীবনের অজানা গল্প, ২০০৩ সালে বিশ্বকাপ ফাইনালে ভারত হারলেও ৬৭৩ রান করে ম্যান অব দ্যা সিরিজ হয়েছিলেন মাস্টার ব্লাস্টার সচিন টেন্ডুলকার, আর তার জন্য তিনি পেয়েছিলেন সোনার ব্যাট, সেটি তুলে দিয়েছিলেন তার হাতে গ্যারি সোবার্স।

তবে জেনে আশ্চর্য হতে হয় তিনি নাকি অনেক মাস পর্যন্ত এটা জানতেনই না যে সেটি সত্যি সোনার ছিল, জন্মদিনে এমনই তথ্য ফাঁস করলেন তিনি। বিশ্বকাপে হেরে যথেষ্টই মন খারাপ ছিল তাঁর, যে কারণে জামা কাপড়ের ব্যাগে রেখে দিয়েছিলেন তিনি সেটিকে। তবে বিমানবন্দরে তাঁর পরিবার ও একাধিক সদস্যসহ তাঁর বন্ধুবান্ধবরা সোনার ব্যাটটিকে দেখতে না পেয়ে সেটির খোঁজ করেন এবং অপর দিকে লক্ষ্য করেন শচীনের সে বিষয়ে বিন্দুমাত্র কোন ভ্রুক্ষেপ নেই,কারণ তিনি হারের জন্য এতই মন খারাপ যে কারণে তিনি সোনার ব্যাট পেয়েও বিন্দুমাত্র আনন্দিত ছিলেন না।এতটাই ক্রিকেট ভালোবাসতেন।

 এই ৪৯ তম জন্মদিনে শচীন টেন্ডুলকারের এধরনের এক চমকপ্রদ ঘটনার সাক্ষী থাকতে পেরে আমরা সকলেই খুব আনন্দিত। আমরা এভাবেই চাই তিনি সুস্থ এবং ভালো থাকুন। এভাবেই আরো অজানা গল্প আমাদের সামনে আসুক এবং আমরা সেগুলো জানতে পেরে উপভোগ করি, গড ক্রিকেটের জন্মদিন বলে কথা।

Post a Comment

Previous Post Next Post